Bangladesh Railway E-Ticket 2022 : তিন ধাপে কাটুন ই-টিকেট

Bangladesh Railway E-Ticket সিস্টেম চালু  তিন ধাপে বাধাহীনভাবে কাটুন রেলের ই-টিকেট। আগের সিএনএস লিমিটেডের পরিবর্তে রেলওয়ে টিকেটিং ম্যানেজমন্টে এর দায়িত্ব পেয়েছে সহজ লিমিটেড (Shohoz-Synesis-Vincen JV)। সহজ-সিনেসিস-ভিনসেন যৌথভাবে বাংলাদেশ রেলওয়ের নতুন টিকিটিং সিস্টেম (Bangladesh Railway eTicket) তৈরি করেছে। ফলে রেলওয়ের অনলাইন ও অফলাইন টিকেট কাটা নিয়ে বেশ কিছুদিন থেকে যে ভোগান্তি পোহাচ্ছিল তা কাটিয়ে এখন মাত্র তিন ধাপে বাধাহীন টিকিট কাটতে সক্ষম হচ্ছেন যাত্রীরা।

২৬শে মার্চ ২০২২ থেকে  সহজের তত্বাবধানে আবার চালু হয়েছে  Bangladesh Railway E-Ticket সিস্টেম।

বাংলাদেশ রেলওয়ের অনলাইন টিকেট সিস্টেম পরিচালনার জন্য সহজ-এর সঙ্গে পাঁচ বছর মেয়াদী চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় ২০২২ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি। এর আগে বাস ওরঞ্চের টিকেটিং সিস্টেম পরিচালনা করে আসছে সহজ ডট কম। আর এ অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে সহজ রেল টিকিটিং সিস্টেমের দায়িত্ব নেয়। উন্মুক্ত টেন্ডারের মাধ্যমে সবচেয়ে কম দরদাতা হিসেবে কাজটি পায় সহজ-সিনেসিস-ভিনসেন জয়েন্ট ভেঞ্চার। এর আগে টিকিট বিক্রির দায়িত্ব পালন করেছিল সিএনএস নামের একটি প্রতিষ্ঠান।

ওই চুক্তি অনুযায়ী সহজ-সিনেসিস-ভিনসেন জেভি প্রাথমিকভাবে চলমান সিসিএসআরটিএস সিস্টেমটি সচল রাখবে এবং আগামী ১৮ মাসের মধ্যে সিসিএসআরটিএস সিস্টেমটি বিআরআইটিএস দ্বারা প্রতিস্থাপিত হবে।

Bangladesh Railway E-Ticket টিকিট কেনার ৫ নির্দেশনা

১। অনলাইনে পাঁচ দিন আগে থেকে টিকিট কেনা যাবে।

২। আপনি মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ব্যবহার করে টিকিটের জন্য অর্থ পরিশোধ করতে পারেন। এগুলো হলো বিকাশ, নগদ, রকেট বা ডেবিট/ক্রেডিট কার্ড: মাস্টারকার্ড, ভিসা। এছাড়া শিগগিরই আরো পেমেন্ট পদ্ধতি যুক্ত হবে।

৩। পেমেন্ট বা লেনদেন ব্যর্থ হলে, কাটা পরিমাণ আপনার ব্যাংক বা আপনি যে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ব্যবহার করেছে সেই সার্ভিস প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান যেমন বিারশ/রকেট পরবর্তী 8 কার্যদিবসের মধ্যে টাকা ফেরত দেবে।

৪। আপনি যদি ইমেলে আপনার টিকিটের অনুলিপি না পেয়ে থাকেন, অনুগ্রহ করে আপনার স্প্যাম/জাঙ্ক ফোল্ডার চেক করুন। আপনি লগইন করার পরে আপনার অ্যাকাউন্টের Purchase History থেকে আপনার টিকিটের কপি ডাউনলোড করতে পারেন। এছাড়া আপনি Google Play স্টোর থেকে বাংলাদেশ রেলওয়ে এর অফিসিয়াল Rail Sheba অ্যাপটি ডাউনলোড করুন।

৫। যাত্রীরা যদি Bangladesh Railway E-Ticket বিক্রির দাবি করে গুগল প্লে স্টোর থেকে ভুয়া অ্যাপস বা অন্য কোনো অ্যাপ ডাউনলোড করে তাহলে কর্তৃপক্ষ কোনো দায় নেবে না।

যেভাবে Registration করতে হবেঃ

একবারই এ রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। প্রথমে https://.eticket.railway.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে হবে।

ওয়েব সাইটটির নীচের দিকে “Registration” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

Create an Account” নামের নতুন একটি Page আসবে। এখানে “Personal Information” এর সংশ্লিষ্ট ঘরগুলো প্রয়োজনীয় তথ্যাদি দিয়ে পূরণ করতঃ Security code ঘরের পাশে প্রদর্শিত “Security Code” দিয়ে পূরণ করে Register বাটনে ক্লিক করতে হবে।

সকল তথ্যাদি সঠিক থাকলে “Registration Successful” নামে নতুন একটি Page আসবে।

ই-টিকেটিং সিস্টেম থেকে তাৎক্ষনিকভাবে আপনার প্রদত্ত ই-মেইল ঠিকানা Bangladesh Railway এর থেকে একটি ই-মেইল পাঠানো হবে।

আপনার ই-মেইল এর মেসেজ বক্সে Bangladesh Railway প্রদত্ত ই-মেইলটি খুলতে হবে। মেসেজের ভিতর রক্ষিত “Click” লিংকটিতে ক্লিক করতে হবে। এ প্রক্রিয়ার পর যাত্রীর Registration প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ হবে।

Bangladesh Railway E-Ticket টিকেট কাটার পদ্ধতি

প্রথমে www.eticket.railway.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে হবে।

“Log in” এর প্যানেল ই-মেইল ঠিকানা, পাসওয়ার্ড এবং সিকিউরিটি কোড পূরণ করতঃ “Log in” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

এরপর যে Pageটি আসবে তাতে “Purchase ticket” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

এখানে যে Pageটি আসবে সে Page এ আপনার চাহিত ভ্রমণ তারিখ, প্রারম্ভিক স্টেশন, গন্তব্য স্টেশন, ট্রেনের নাম, শ্রেনী, টিকেট সংখ্যা যেভাবে রয়েছে তা পূরণ করতে হবে। এর পরের পেইজে “Registration Seat Available” দ্বারা চাহিত টিকেট এবং এর মূল্যমান জানিয়ে দেয়া হবে। টিকেট থাকলে “Purchase ticket” বাটন ক্লিক করতে হবে।

ক্রেডিট কার্ড, ক্যাশ কার্ড কিংবা ব্রাক ব্যাংকের একাউন্ট মারফত যাত্রির জমাকৃত টাকা থেকে টিকেট মূল্য কেটে নেয়া হবে এবং যাত্রীর ই-মেইলে ই-টিকেটটি পাঠিয়ে টিকেট নিশ্চিত করা হয়ে থাকে।

এরপর ই-মেইল মেসেজ বক্স থেকে পাঠানো টিকিটটির প্রিন্ট নিয়ে ফটো আইডিসহ ই-টিকিট ‘Ticket Print Information’ দিয়ে সংশ্লিষ্ট সোর্স স্টেশন থেকে যাত্রার আগে ছাপানো টিকিট সংগ্রহ করতে হবে।

Bangladesh railway E-Ticket 2022
নমুনা টিকেট

১৯৯৪ সাল থেকে কম্পিউটার ভিত্তিক টিকিটিং সিস্টেম চালু করে বাংলাদেশ রেলওয়ে। তখন প্রাথমিকভাবে ২৭টি স্টেশনে কম্পিউটারের মাধ্যমে টিকিট ইস্যু করা হতো। বর্তমানে ৭৭টি স্টেশনে অনলাইনের মাধ্যমে ইস্যু করা হচ্ছে। ১০৪টি আন্তঃনগর ট্রেনের দৈনিক প্রায় ৯০ হাজার ও মাসিক প্রায় ২৭ লাখ যাত্রীর টিকিট অনলাইনে ইস্যু করা হয়। এ সকল টিকিটের ৫০ শতাংশ অর্থাৎ প্রায় ১৩ লাখ টিকিট ওয়েবসাইট ও মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে ইস্যু করা হচ্ছে।

Bangladesh Railway E-Ticket টিকেট ভেরিফাই করবেন যেভাবে

অনলাইনে টিকেট কাটার পর আপনি যদি আপনার টিকিট ভেরিফাই করতে চান তাহলে প্রথমে www.eticket.railway.gov.bd এর যেতে হবে। এরপর মূল পেইজের উপরের ডানদিকের ‘Verify Ticket’ এ ক্লিক করুন। সেখনে আপনার মোবাইল ও টিকিট নাম্বার লিখে ‘Verify Ticket’ এ ক্লিক করলেই টিকিটের বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন।

যদি টিকিট সংক্রান্ত কোনো সমস্যা হয় কিংবা টাকা কেটে নিলেও যদি ই-টিকিট ইস্যু না হয়, তাহলে বিকাশের ১৬২৪৭ নাম্বারে কল করে আপনার সমস্যার কথা জানান। এছাড়া Bangladesh Railway E-Ticket সংক্রান্ত যে কোন সমস্যার সমাধান পেতে ই-মেইল করতে পারেন ‘support@eticket.railway.gov.bd’ এই ঠিকানায়।

আরও পড়ুন:

ফেসবুকে যে ১০ টি কাজ করলে আপনি মহা বিপদে পড়তে পারেন

ইউটিউব থেকে আয় করতে চান লাখ টাকা? জেনে নিন ৯ টি উপায় – Income from Youtube 2022

Leave a Reply